এনাটমি বিভাগে সঞ্জীবসহ এ পর্যনত্ম ৭ ব্যক্তির দেহদান

95624_1

সঙ্গীত শিল্পী ও সাংবাদিক সঞ্জীব চৌধুরীকে নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ এনাটমি বিভাগে এ পর্যনত্ম ৭ ব্যক্তি মরদেহ দান করেছেন৷ আরও ১৭ জন তাদের মরদেহ দান করবেন বলে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়েছেন৷ গত ২০ বছরে মরদেহ দানকারী অন্য ব্যক্তিরা হলেন_ নরেন বিশ্বাস, পারভেজ মাসুদ ওরফে পিকে চক্রবতর্ী, শ্রী মৈত্রীয় চট্টোপাধ্যায়, ওয়াহিদুল হক, আহমেদ শরীফ ও মেহেরুন্নেসা৷
এনাটমি বিভাগ সূত্র জানায়, মরদেহ দানকারীরা মৃতু্যর আগে নিকটাত্মীয়দের কাছে এমবিবিএস শিক্ষার্থীদের জন্য মরদেহ দান করার কথা বলে গিয়েছিলেন৷ তারা মারা যাওয়ার পর তাদের মরদেহ এনাটমি বিভাগের কাছে ন্যসত্ম করা হয়৷ তাদের মধ্যে ড. আহমেদ শরীফ ও নরেন বিশ্বাস ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন৷ ওয়াহিদুল হক ছিলেন রবীন্দ্রগবেষক৷ মেহেরুন্নেসা ছিলেন শিক্ষিকা৷ বাকিদের পেশা সম্পর্কে তেমন কিছু জানা যায়নি৷
অন্যদিকে, যে ১৭ জন তাদের মরদেহ এনাটমি বিভাগে দান করার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়েছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন_ মানিকগঞ্জের ব্র্যাক কর্মকতর্া বাবু বিশ্বাস ওরফে রঞ্জন সেন, মাদারীপুরের আবদুর রব সদর্ার, নরসিংদীর অবসরপ্রাপ্ত সেনা ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ নাজিম, ঝিনাইদহের শফিকুল ইসলাম, গাজীপুরের আসাদুল্লাহ বাদল, মাগুরার সনত্মোষ কুমার, পিরোজপুরের শিক্ষক মনিশংকর হালদার, নেত্রকোণার উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা শামসুর রহমান, ময়মনসিংহের সাবিত্রী সেন, কুমিল্লার আবদুস সোবহান, ঢাকার আবদুল গফুর, সিরাজুল ইসলাম, জান্নাতুল মাওয়া, গফুর সর্দার, আবু কাওসার ও নরসিংদীর মকবুল হোসেন৷ ইতিমধ্যে তারা স্বেচ্ছায় মরদেহ দানের ব্যাপারে এফিডেভিট করে তার কপি সংশ্লিষ্ট এনাটমি বিভাগে পাঠিয়ে দিয়েছেন৷
জানা গেছে, এনাটমি বিভাগে যেসব মরদেহ দান করা হয়, সেগুলোকে তিনভাবে শ্রেণীবিন্যাস করেন অধ্যাপকরা৷ প্রথম শ্রেণীতে কংকাল, দ্বিতীয় শ্রেণীতে মমি এবং তৃতীয় শ্রেণীতে ডি সেকশন বডি৷ গায়ক ও সাংবাদিক সঞ্জীব চৌধুরী’র দেহ কোন শ্রেণীভুক্ত করা হবে সে ব্যাপারে এখনও সিদ্ধানত্ম হয়নি৷ সূত্রমতে, এনাটমি বিভাগের মরদেহগুলো চিহ্নিত করার কোনও লক্ষ্যযোগ্য চিহ্ন দেয়া থাকে না৷ যে কারণে মরদেহগুলোর পরিচয় বলা যাচ্ছে না৷ তবে একটি কংকাল রয়েছে সংশ্লিষ্ট বিভাগের প্রধান অধ্যাপিকা শামীম আরার অফিস কক্ষে, ২টি শ্রেণীকক্ষে, ২টি সংশ্লিষ্ট বিভাগের মিউজিয়াম ও ১টি রয়েছে ল্যাবরেটরিতে৷ এছাড়া ড. আহমদ শরীফের (স্কালেটিন করা) কংকালটি বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ লেকচার গ্যালারিতে রয়েছে এমবিবিএস শিক্ষাথর্ীদের জন্য৷ তবে এনাটমি বিভাগ সূত্র জানায়, যারা মরদেহ দান করেছেন এবং মরদেহ দান করার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়েছেন, তারা কাজটি করেছেন স্বেচ্ছাপ্রণোদিত হয়ে৷ এর পেছনে মহত্‍ উদ্দেশ্য রয়েছে৷ 

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s