মনের জোরে ক্যান্সার জয়

মন বা হৃদয় বড়ই বিচিত্র বিষয়৷ এর রয়েছে অভাবনীয় ৰমতা৷ পৃথিবীতে এর শক্তির কাছে সবকিছুই পরাভূত৷ মনের গতি অকল্পনীয়৷ এমন বহু অভিধায় বর্ণনা করা যায়৷ কিন্তু আশ্চর্য এক শক্তির কথা জানিয়েছেন একদল মার্কিন বিজ্ঞানী৷ তাদের মতে, মনের জোরে ক্যান্সার জয় সম্ভব৷

ক্যান্সার জার্নালে সম্প্রতি প্রকাশিত এক নিবন্ধে গুরম্নত্বপূর্ণ তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে৷ তাতে বলা হয়েছে- পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক ১ হাজারেরও বেশি ক্যান্সার রোগীর ওপর সমীৰা চালান৷ যাদের সবাই মসত্মিষ্ক ও ঘাড় ক্যান্সারে আক্রানত্ম৷ ব্যাপক সমীৰাশেষে তারা জানিয়েছেন, ইতিবাচক চিনত্মা অর্থাত্‍ আশাবাদী মনোভাব ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে জীবন-যাপনে সহায়ক ভূমিকা পালন করে৷ অবশ্য এ মতের বিরোধিতাও করেছেন অপর একদল বিশেষজ্ঞ৷ তাদের মতে, ক্যান্সারের সঙ্গে জীবন সংগ্রামে আবেগ-উচ্ছ্বাস বা আশাবাদ কোনকিছুই সরাসরি প্রভাব ফেলে না৷ ম্যাকমিলান ক্যান্সার সাপোর্টের প্রফেসর জেনি মাহের বলেন, যদিও ক্যান্সারের ওপর আগে-উচ্ছ্বাসের প্রভাব সংক্রানত্ম উলেস্নখযোগ্য কোন প্রমাণ নেই তবে ধারণা করা হয় ইতিবাচক বা আশাবাদী মনোভাব দীর্ঘ জীবনের ওপর ক্রিয়াশীল৷ তিনি বলেন, অবসাদগ্রসত্মতা ও উদ্বেগ-উত্‍কক্তা ক্যান্সার রোগীদের মানসিকভাবে দুর্বল করে তোলে৷ ইতিবাচক মনোভাব ঐসব নাজুক পরিস্থিতি মোকাবিলায় মন্ত্রের মতো কাজ করে৷ রোগী নতুন করে বাঁচতে শেখে৷ এটা কেবল মনের জোরেই সম্ভব৷ গবেষক দলের প্রধান ড. জেমস কোনির ভাষায়, ক্যান্সার রোগীদের যদি সাইকোথেরাপি বা মনসত্মাত্তি্বক চিকিত্‍সা দেয়া হয়-তাহলে তাদের প্রভূত উপকার সাধিত হয়৷ জীবন সংগ্রামে জয়ী হওয়ার কাজে বাড়তি শক্তি যোগায়৷ সবচেয়ে বড় কথা এতে করে তারা মানসিক ও সামাজিকভাবে লাভবান হয়৷ তবে এৰেত্রে তিনি ব্যক্তিপর্যায়ে চিকিত্‍সার চেয়ে সামষ্টিক বা গোষ্ঠীগত পদ্ধতি অনুসরণের পৰপাতি৷ অর্থাত্‍ একই ধরনের রোগীকে এক সঙ্গে এ পদ্ধতি প্রয়োগ করা উচিত৷ তিনি বলেন, আশাই কেবল ক্যান্সার জয়ের হাতিয়ার৷ তাই তিনি ক্যান্সার আক্রানত্ম রোগীদের অহেতুক মনোকষ্ট বা মানসিক যন্ত্রণা ভোগ না করার পরামর্শ দিয়েছেন৷ তিনি বলেন, ক্যান্সার সনাক্ত হওয়ার পরই একশ্রেণীর রোগী মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েন৷ যা মোটেই উচিত নয়৷ এতে করে জীবন থাকতেই একে বোঝা মনে করা হয়৷ এমন অবস্থা রোগকে আরো চাঙ্গা করে তোলে৷ ফলে চিকিত্‍সায় তেমন কোন ভাল ফলও পাওয়া যায় না৷ বস্তুত এমন অবস্থা একেবারেই পরিত্যাজ্য৷ মনে রাখা দরকার মনের আধার যেখানে, রোগের উত্‍পত্তিও সেখানে৷ মন সুস্থ থাকলে শরীর সুস্থ থাকতে বাধ্য৷

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.