মুন্সীগঞ্জ জেলা যুবদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনে তোড়জোড়

মুন্সীগঞ্জ জেলা যুবদলের ১৫১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দাখিল করতে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। এ নিয়ে জেলার ছয়টি উপজেলার যুবদলের নেতাকর্মীদের মধ্যে নতুন কমিটিতে পদ পেতে একদিকে চলছে তদবির, অন্যদিকে আগের কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ একাধিক নেতা পদবঞ্চিত এবং অবমূল্যায়িত হওয়ায় তাদের সমর্থিতদের মধ্যে ক্ষোভ থাকলেও কেন্দ্রীয় কমিটির সমর্থন না পেয়ে তারা রয়েছেন নিশ্চুপ।

এর আগে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহা ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান রতনের হস্তক্ষেপে প্রায় সাড়ে ছয় বছর পর গত ১৩ জুন মুন্সীগঞ্জ যুবদলের নতুন কমিটি অনুমোদন করা হয়। সুলতান আহমেদকে সভাপতি ও আবদুস সালাম মোল্লাকে সাধারণ সম্পাদক করে সাত সদস্যের নতুন এ কমিটিকে এক মাসের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশনা দেওয়া হয়। তবে গতকাল মঙ্গলবার ৪১ দিন পার হলেও এখনও পূর্ণাঙ্গ কমিটি দাখিল করা হয়নি।

এদিকে, সম্মেলন ছাড়াই সাবেক সভাপতি তারিক কাশেম খান মুকুল ও সাধারণ সম্পাদক সম্রাট ইকবালের কমিটি ভেঙে দেওয়া এবং জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাইয়ের অনুসারীরা পদ না পাওয়ায় অনেক নেতাকর্মীর মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। এ নিয়ে একটি পক্ষ কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে দৌড়ঝাঁপ করলেও তাদের সমর্থন না পেয়ে পুরনো কমিটির নেতারা নিরব রয়েছেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। তবে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদকের ঘনিষ্ঠদের দাবি, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলনের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড জোরদার ও আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখেই নতুন কমিটি অনুমোদন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে জেলা যুবদলের নবনির্বাচিত সভাপতি সুলতান আহমেদ জানান, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই জেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দাখিল করা হবে। কমিটি চূড়ান্ত করতেই গতকাল

মঙ্গলবার দিনভর জেলা যুবদলের নেতাদের নিয়ে সভা করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, এক মাস সময়

নির্ধারণ থাকলেও কমিটি গঠন করতে সময়

চেয়ে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় নেতারা সময় বৃদ্ধি করেছেন।

জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল সালাম মোল্লা বলেন, নির্যাতিত ও হয়রানির শিকার

ত্যাগী নেতাকর্মীদেরই জেলা কমিটির বিভিন্ন পদে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে। এ নিয়ে জেলার ছয়টি উপজেলা ও দুটি পৌরসভার নেতাকর্মীদের নিয়ে দফায় দফায় সভা করা হয়েছে।

অন্যদিকে জেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সম্রাট ইকবাল জানান, দীর্ঘদিন দলীয় কার্যক্রমে নিষ্ফ্ক্রিয় থাকা ব্যক্তিরাই যুবদলের গুরুত্বপূর্ণ পদ পেয়েছেন। এ ছাড়া সহসভাপতি ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে পদবিন্যাস সঠিক হয়নি।

সমকাল

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.