দীর্ঘমেয়াদি প্রধানমন্ত্রী : রেকর্ড গড়ছেন শিনজো আবে

রাহমান মনি: জাপানের ৪৮তম জাতীয় সংসদের মেয়াদ পূর্ণ করার সুযোগ পেয়ে জাপানের ইতিহাসে দীর্ঘমেয়াদি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রেকর্ড গড়ার সুযোগ হাতছানি দিচ্ছে শিনজো আবেকে। বর্তমান সংসদের বাকি সময়টা পূর্ণ করতে পারলে আবেই হবেন জাপানের ইতিহাসে শাসন করা দীর্ঘস্থায়ী প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী আবের এই মেয়াদ পূর্ণ হলে তার ঝুলিতে ৩ হাজার ২৫২ দিন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেশ শাসনের দায়িত্ব পালনের রেকর্ডটি জমা হবে। যা ইতোপূর্বে ২ হাজার ৮৮৩ দিন দায়িত্ব পালন করে রেকর্ড গড়ে ছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী তারো কাৎসুরা। এর পরই রয়েছেন এই সাকু সাতো, তিনি এক নাগাড়ে তিনবার (৯ নভেম্বর ১৯৬৪-৭ জুলাই ১৯৭২) প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মোট ২ হাজার ৭৯৮ দিন দায়িত্ব পালন করেন। বেশিদিন শাসন করার সংখ্যার দিক থেকে ইতিহাসে দ্বিতীয় স্থান হলেও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ উত্তর আধুনিক জাপান এবং বর্তমান সংবিধানে তিনিই সর্বোচ্চ স্থায়ী দায়িত্ব পালনকারী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে স্থান করে নিয়েছেন।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ২৬ সেপ্টেম্বর ২০০৬ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর ২০০৭ সাল পর্যন্ত মোট ৩৬৫ দিন প্রথম মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ২৬ ডিসেম্বর ২০১২ থেকে ২৪ ডিসেম্বর ২০১৪ পর্যন্ত দ্বিতীয় মেয়াদে এবং ২৪ ডিসেম্বর ২০১৪ থেকে ১ নভেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত তৃতীয় মেয়াদে মোট ২ হাজার ৯৬ দিন দায়িত্ব পালন করাসহ ১ নভেম্বর ২০১৭ থেকে বর্তমান অবধি তিনি দায়িত্ব পালন করে চলেছেন চতুর্থবারের মতো।

এই বছর নভেম্বর থেকে তিনি পঞ্চমবারের মতো দায়িত্ব পালন করার ম্যান্ডেট (১ নভেম্বর ১৯১৯ পর্যন্ত) ইতোমধ্যে তিনি পেয়ে গেছেন দলীয় সভাপতি নির্বাচিত হয়ে। আর এই আগামী পঞ্চমবার তিনি তার দায়িত্বের মেয়াদ পূর্ণ করতে পারলে তিনিই হবেন জাপানের দীর্ঘমেয়াদি দায়িত্ব পালন করা প্রধানমন্ত্রী। শুধু তাই নয়, আবে হবেন একমাত্র প্রধানমন্ত্রী যিনি একনাগাড়ে চারবার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করতে সক্ষম হবেন। এই রেকর্ডটিও তারই দখলে থাকবে।

১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি)’র দলীয় কনভেনশনে আবে তৃতীয়বারের মতো সভাপতি পদে জয়ী হন। তারই রানিং মেট এলডিপি’র প্রাক্তন সেক্রেটারি জেনারেল শিগেরু ইশিবাকে বিপুল ভোটের ব্যাবধানে পরাজিত করেন তিনি।

সর্বমোট ৮১০ ভোট সংগৃহীত হয় দলীয় কনভেনশনে। যার অর্ধেক অর্থাৎ ৪০৫ ভোট ছিল দলের বিভিন্ন পর্যায়ের ডেলিগেটসদের। আর বাকি ৪০৫ ভোট ছিল সংসদের আইন প্রণেতাদের।

দলীয় ডেলিগেটসদের ২২৪ ভোট আবের পক্ষে এবং বাকি ১৮১ ভোট ইশিবার পক্ষে পড়ে। বর্তমান সংসদের আইন প্রণেতাদের ৪০৫ ভোটের মধ্যে ৩২৯ ভোট নিজের করে পেতে সক্ষম হন। জয়ী হয়ে আবে সবাইকে নিয়ে কাজ করার দৃঢ় সংকল্প ব্যাক্ত করে বলেন, আমি আপনাদের সকলের সঙ্গে মিলে জাপানের শান্তিবাদী সংবিধান সংস্কার করায়ত্ব করতে চাই।

জাপানে কে প্রধানমন্ত্রী হবেন না হবেন তা নিয়ে সাধারণ জনগনের মধ্যে তেমন কোনো সাড়া না জাগালেও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন, আগামী সপ্তাহে মার্কিন মুল্লুকে খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠকে আবেকে উতরে যেতে হবে। ওই বৈঠকে জাপান-আমেরিকা দু দেশের বাণিজ্য ঘাটতি মেটাতে আবেকে দুই-তৃতীয়াংশ রপ্তানি ছেঁটে ফেলার আহ্বান জানাতে হবে (জাপান মিডিয়া সূত্রে)।

জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে আবে বর্তমানে আমেরিকায় রয়েছেন। ফিরে এসেই তিনি নতুন মন্ত্রিসভা গঠনের কাজ শুরু করবেন। কিছু নতুন মুখ যেমন স্থান পাবে আবের আগামী মন্ত্রিপরিষদে তেমনি কিছু ঝড়ে পড়তে হবে বর্তমানদের থেকে।

দলীয় প্রধান নির্বাচনের পূর্ব দিন আবে টোকিওর আকিহাবারা (বিশ্বের সর্ব বৃহৎ ইলেকট্রনিকস মার্কেট) রেল স্টেশন চত্বরে এক নির্বাচনী প্রচারাভিযানে অংশ নেন। নির্বাচনী সভায় আবে আগামীতে তার পরিকল্পনা তুলে ধরার সময় ব্যাপক বিরোধিতার সম্মুখীন হতে হয়। এসময় আবে বিরোধীরা, ‘আবেকে আর ক্ষমতায় দেখতে চাই না’, ‘এবার আবে পদত্যাগ করে সরে দাঁড়াও’, ‘আর নয় আবে’ জাতীয় প্লাকেড বহন করেন। সে­াগানে সে­াগানে এলাকা প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। এর ভেতর আবেকে তার বক্তব্য চালিয়ে যেতে হয়।

জাপান পুলিশ শান্তিপূর্ণভাবে সবাইকে যার যার কর্মসূচি পালনে সহায়তা করতে দেখা যায়। পক্ষে বিপক্ষে একই সভায় কর্মসূচি পালিত হলেও কোনো রকম অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

জাপানের অন্যতম প্রভাবশালী রাজনৈতিক পরিবারের তৃতীয় প্রজন্মের সদস্য হচ্ছেন শিনজো আবে। আবের দাদা কান আবে একজন ঝানু রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ছিলেন। ইয়ামাগুচি প্রিফেকচারে ছিল তার একচ্ছত্র নেতৃত্ব। আবের পিতা শিনতারো আবে ছিলেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ উত্তর জাপানের অন্যতম সফল প্রধানমন্ত্রী ইয়াসুহিরো নাকাসোনের ক্যাবিনেটের পর রাষ্ট্রমন্ত্রী (২৭ নভেম্বর ১৯৮২-২২ জুলাই ১৯৮৬)।

শিনজো আবের নানা (পিতামহ) নোবুসুকে কিশি ছিলেন জাপানের ৫৭তম প্রধানমন্ত্রী (৩১ জানুয়ারি ১৯৫৭-১৯ জুলাই ১৯৬০)। তিনি ৯০ বছর বয়সে ৭ আগস্ট ১৯৮৭ (১৮৯৬-১৯৮৭) মৃত্যুবরণ করেন।

rahmanmoni@kym.biglobe.ne.jp

সাপ্তাহিক

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.